আপনি চাইলে আজকে শুরু করতে পারেন যদি আপনার সাহস থাকে। আমার সাহস নাই তাই শুরু না করে লেখি। বিগত সময়ে বেশ কয়েকবার হাল্কা ভাবে শুরু করার একটা চেষ্টা চালায়ে ছিলাম কিন্তু ঠিক সুবিধা করা যায় নাই! দোষ আমার না সরকারের! ছোট বেলায় হোমওয়ারক না করলে বলতাম বিড়ালে খাই ফেলছে, এই বেলা ত আর বিড়ালরে দোষী সাব্যস্ত করা যাচ্ছে না। তা যাই হোক যা বলতে চাই।

কোন ব্যবসা শুরু করার জন্যে আপনার প্রথমে দরকার সাহস। নাম্বার দুই হইলঃ কি দিয়া শুরু করবেন মানে আপনার পন্য। আর তার পরেরটা হলো গিয়াঃ কারা খাইব, মানে আপনার ক্রেতা। এই দেশে ক্রেতার অভাব কখনো হবে বলে মনে হচ্ছে না, যদি না মেজর কোন ভুমিকম্পে ঢাকা শহরের কিছু হয়ে না যায়। আপনি বলতে পারেন টেকা দিবে কেডা, এইটার কথা কচ্ছেন না যে। শুনেন, এত টেকা টেকা করলে ব্যবসা করতে পারবেন না। যেই ব্যবসার কথা বলছি তা খুব সল্প পুজি নিয়ে করা সম্ভব।

১। ১০০ জন ক্রেতাঃ খুজে বের করুন ১০০ জন লোক যারা বাজারে যা আছে তাতে সন্তুষ্ট না, যারা আরো বেশি, আরো ভালো কিছু চায়। খুজে বের করুন তারা কি চায়, কিভাবে চায়, কেন চায়। আরো খুজে বের করুন বাজারে কারা কারা এই জিনিস দিচ্ছে। তাদের দেয়ার মধ্যে কি সমস্যা। এবার খুজা বন্ধ করুন! এবং কাজে নেমে পড়ুন। কাজটা কি?

২। এই একশ জনের জন্যে তারা যা চায় তা বানানঃ এরা কি চায় এইডা খুজে বের করেছেন, এবার এই একশ জনের চাহিদা মোতাবেক তাদের পন্য সরবরাহ করেন। এমন কিছু দেন যেন তারা চমকে যায়। যদি চমকে না যায় তাহলে জোর করে চমকে দিন (এইটা ফান)! যদি আপনি এমন কছু দিতে পারেন যা আপনার এই ১০০ জন ক্রেতাকে তাদের আশাতীত সন্তুষ্ট করতে পারে তাহলে দেখবেন খেলা কারে কয়। তারা একজন আরো ১০০ বা ১০০০ জনকে বলবে। আপনার দোকানে লাইন লেগে যাবে। যদি না লাগে, তাহলে আমার কোন দোষ নাই। সব দোষ আপনার। কি কি দোষ (ভুল) করেছেন বের করুন। কিভাবে এগুলা ঠিক করা যায় ভাবুন এবং আবার শুরু থেকে শুরু করুন।

উপরে বরনিত পদ্ধতিটা খুব দ্রুত পপুলার হবে আর হারিয়ে যাবে সুতরাং যা করবেন তাড়াতাড়ি করেন।