নতুন নতুন আইডিয়া ছাড়া কোন ব্যবসাকে প্রতিষ্ঠিত করা অসম্ভব।কিন্তু অনেক উদ্যোক্তারাই নতুন কি নিয়ে ব্যবসা শুরু করবে তার আইডিয়া সংকটে থাকে।নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য বলছি, যারা এখনও অনেকের কাছ থেকে জেনে শুনে কিংবা গুগলে সার্চ করেও নতুন কোন আইডিয়ার কুল কিনারা করতে পারেন নি, তারা চোখ বুলিয়ে দেখতে পারেন আমাদের দেয়া এই পাঁচটি টিপস।

কথা বলুন সবার সাথে

নতুন কোন আইডিয়া খুঁজে বের করতে নিজে ঘরে বসে না থেকে বেড়িয়ে পরুন। কথা বলে দেখুন আপনার আশে পাশের মানুষের সাথে। তাদের কাছ থেকে শুনে কথা বলে বের হয়ে যাবে নতুন অনেক আইডিয়া।বাংলাদেশের এলাকা ভিত্তিতে একেক জায়গায় ব্যবসা করতে গিয়ে টাকার পরিমাণও একেক ধরণের হয়।তাই বাজেট তৈরি করতে বেশ কিছু অভিজ্ঞ মানুষের পরামর্শ নেয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

নিজেকে জানুন –

কোন ব্যবসা শুরু করার আগে বেশ কিছু প্রশ্ন আপনি নিজেকেই করতে পারেন। আপনি নিজে কি কাজ করতে পছন্দ করেন? আপনি কোন কাজটি সবচেয়ে ভাল পারেন?

ব্যবসা সংক্রান্ত টিপস দিতে উদ্যোক্তাদের নিজেদেরকেই এই দুটো প্রশ্ন করতে বলেছেন বিজনেস এনালাইসিস নিয়ে কাজ করা লাইট ক্যাসেল পার্টনারসের সিইও বিজন ইসলাম।সিটি ব্যাংকের ভাল সম্মানীর চাকরি ছেড়ে বিজনেস এনালাইসিসকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনি।তার মতে, নতুন উদ্যোক্তাদের এই দুটি প্রশ্নের উত্তর বের করে সেই অনুযায়ী কাজ করে যাওয়াই ভাল।

সেভেন্টিন ইভেন্ট অর্গানাইজেশনের সিইও শাহিন রহমান বলেন, ‘ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোন গ্রাউন্ড ব্রেকিং আইডিয়া নয়।আমরা নিজেরা মজা করতে করতে আমাদের কাজ করে যাই’।তাই তিনিও মনে করেন নিজের মন থেকে খুশী হয়ে যেই কাজ করা হয় সেটাতেই সফল হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী।

সমস্যাকে পরিণত করুন সম্ভাবনায় –

বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে ব্যবসা করতে হলে অনেক গুলো বিষয় রাখতে হয়। যে কোন সময় যে কোন বিষয় সমস্যা হিসেবে আসতে পারে। বর্তমানে ট্রাফিক জ্যাম এদেশের বড় একটি সমস্যা। তাই এই সমস্যাটি মাথায় রেখে নতুন কোন ব্যবসা দাঁর করানোর চিন্তা করতে পারেন। শুধু বড় সমস্যার দিকে তাকালেই হবে না, ছোটখাটো সমস্যার সমাধানও অনেক উপকারে আসতে পারে যে কোন মানুষের জন্য। ছোট খাট বিষয়ের মধ্যে হতে পারে কম দামে আইসক্রিম, সাইকেল পার্টসের দোকান বা এলাকার কাজে আসতে পারে এমন কোন ছোট কাজও উপকারে আসতে পারে অনেকের।

উদাহরণ হিসেবে দেয়া যায়, হলিউড অভিনেত্রী জেসিকা অ্যালবার কথা। তিনি নিজে সন্তান জন্ম দেয়ার পর ওনেস্ট কো নামে নতুন একটি কোম্পানি পরিচালনা শুরু করে। এই কোম্পানির লক্ষ্য বাচ্চাদের জন্য পরিবেশ বান্ধব পণ্য সামগ্রী বাসায় পৌঁছে দেয়া। বর্তমানে কোম্পানিটির বাজার মূল্য এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তাই ছোট খাট কোন বিষয়কে এড়িয়ে না যেয়ে বরং সেটা নিয়েই চিন্তা ভাবনা করা উচিৎ।

অপরিচিত মার্কেটের কথা মাথায় রাখতে হবে-

‘জেসিসি জামিল কমিক্স’এর  ব্যবসা শুরু করে একেএম আলমগির খান এখন বেশ জনপ্রিয়। ছোটবেলা তিনি যেমন কমিক্স পড়ে সময় কাটিয়েছেন এখনকার বাচ্চারাও যেন তেমন শৈশবের স্বাদ পেতে পারে এমনটাই চেয়েছিলেন জামিল।এরপর এমন একটি অপরিচিত মার্কেটের কথা মাথায় রেখে কমিক্স ব্যবসা চালিয়ে গিয়েছেন তিনি। এখন তিনি জেসিসি কমিকনের মত বিভিন্ন ইভেন্টেরও আয়োজন করছে। ফেসবুকে তাদের প্রায় পাঁচ হাজার ফলোয়ারদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগও রাখছেন জেসিসি।

সম্ভাবনাময় ব্যবসা হোক শুরু-

অনেক সময়ই পরিস্থিতি এবং সময়ের প্রয়োজনীয়তা বুঝিয়ে দেয় কোন ব্যবসা ভবিষ্যতে সাড়া ফেলতে পারে। তারই উদাহরণ হিসেবে দেয়া যায় ম্যাগনিটো ডিজিটালের কথা। ডিজিটাল মার্কেটিং এর সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে রিয়াদ শাহরিয়ার হোসেন ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সি ম্যাগনিটো ডিজিটালের যাত্রা শুরু করেন। সেই সময়ে বাংলাদেশের অনেকেই ‘ডিজিটাল মার্কেটিং’এর কথাও শুনে নি।কিন্তু তারপরও তিনি এই প্রতিষ্ঠানকে দাড় করাতে চেষ্টা করে গেছেন। তার মতে, ‘ভবিষ্যতে পৃথিবীতে কি সমস্যা আসতে পারে বা কি বিষয়ে ব্যবসা শুরু করলে সফল হওয়া যাবে, সেই চিন্তা করে নতুন ব্যবসায় হাত দেয়া উচিৎ’।

তিনি আরও জানান, ‘২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশে ইন্টারনেট অনেক বেশী সহজলভ্য হতে শুরু করে। সেই প্রেক্ষিতেই ২০১৩ সালের শুরুতে ম্যগনিটো ডিজিটালের যাত্রা শুরু করি। আলহামদুলিল্লাহ, এখন প্রতি মাসেই আমাদের লভ্যাংশ বেড়ে চলেছে’।

এখন আশা যাক কাজের কথায়, অনেক ধরণের ব্যবসায়িক বুদ্ধিইতো আমাদের মাথায় আসে, কিন্তু হিসাব নিকাশ করে দেখা যায় বেশীর ভাগ আইডিয়াই সফল করতে অনেক বেশী সময়,অবকাঠামো,মূলধন এবং জনবলের প্রয়োজন। তবে যত বাধাই থাকুক; পরিস্থিতি, ব্যবসার ধরণ, সাম্প্রতিক এবং ভবিষ্যতের মার্কেট বিশ্লেষণের পর সাহস করে নতুন একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করতে এখনই কাজ শুরু করে দিন।